KiHobe Latest Articles

Ashit Sharkar
  • 0

করোনা ভাইরাসের কিলিং কীট আবিষ্কারে বরিশালের গবেষকদের সাফল্য কিভাবে সাড়া ফেলেছিল ?

  • 0
করোনা ভাইরাসের কিলিং কীট আবিষ্কারে বরিশালের গবেষকদের সাফল্য কিভাবে সাড়া ফেলেছিল ?

Leave an answer

You must login to add an answer.

1 Answer

  1. করোনা ভাইরাসের কিলিং কীট আবিষ্কারে বরিশালের গবেষকদের সাফল্য–

     

    করোনাভাইরাস! বর্তমান সময়ের সবচেয়ে আতঙ্কিত আর আলোচিত বিষয়।সারাবিশ্ব প্রতিনিয়ত এটি নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা, পরিত্রাণের উপায়, সবকিছু নিয়ে প্রতিনিয়ত উদ্বিগ্ন।

    আর এ নিয়ে প্রতিনিয়ত ঘটে যাচ্ছে নানা আজব গুজব ঘটনা। এ করোনাভাইরাস নিয়ে কেউ কেউ নানা গুজব ছড়াচ্ছে আবারএই ক্রান্তিকাল সময় এ কেউ কেউ নানা আজব কান্ডও ঘটাচ্ছে। নানা গুজবে যেমন মানুষ এর মধ্যে ভয় ভীতি ছড়িয়ে যাচ্ছে আবার অনেক আজব আজব কাজ এই খারাপ সময় এ অনেক মানুষ কে স্বস্তি ও দিচ্ছে।

    করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন বা ওষুধ কেউ কি তৈরি করতে পেরেছে?করলেও তার সাফল্য কতটুকু?এর কোন সুনির্দিষ্ট বা পজেটিভ ব্যাখ্যা এখনো দিতে পারেনি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তবে একেক জন এর একেক কথা।এই ভ্যাকসিন কিংবা করোনা চিকিৎসার ঔষধ নিয়ে নানা গুজবও রটেছিল।কিন্তু বাস্তবিক অর্থে বসে নেই কেউ। পৃথিবীর অনেক দেশই করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কার কিংবা ঔষধ আবিষ্কারে প্রতিনিয়ত গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

    এই দিক দিয়ে বাংলাদেশের গবেষকরাও বসে নেই তারাও চেস্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তাদের সাধ্যমত।করোনা টেস্টিং কিটে ডক্টর জাফরুল্লাহ স্যারের সাফল্যের পর এবার এল নতুন সাফল্য,যা দেখিয়েছেন বরিশালের গবেষকেরা।

    বাংলাদেশের মত এরকম উন্নয়নশীল দেশের এমন সাফল্য অনেকটাই আজব।অনেক গুজবের মধ্যেও মাঝে মাঝে এমন আজব খবর সত্যি আমাদের জন্য অনেক স্বস্তিদায়ক।
    বরিশালের গবেষকদের উদ্ভাবিত কোভিট কিট করোনার প্রাদুর্ভাবে আশার আলো সঞ্চার করছে।

    গবেষকদের দাবি ৬ সপ্তাহের মধ্যে করোনা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব এই কিট এর দ্বারা।পাশাপাশি এটি ব্যবহারের ফলে করোনা রোগীর সংস্পর্শে সুস্থ মানুষ এলেও সে করোনা আকান্ত হবেনা দাবি প্রধান গবেষক গবেষকের ।মাননিয়ন্ত্রণ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলেই করোনা প্রতিরোধের এই কিট দ্রুতই সরকারি অনুমোদন পাওয়ার আশা সংশ্লিষ্টদের।

    আর এই কাজটি যৌথভাবে করে সাফল্য পেয়েছেন বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন রেজিস্টার্ড ডাক্তার এ এইচ এম মাসুম বিল্লা, ডাক্তার উম্মে তাহিরা ইলা এবং বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের জৈব রসায়ন এবং জৈব প্রযুক্তি বিভাগের চেয়ারম্যান ডাক্তার রেহানা পারভীন।

    গেল দুই মাসের গবেষণার মাধ্যমে তাঁরা তৈরি করেছেন করোনা প্রতিরোধে কোভিট কিট।

    ডাক্তার রেহানা পারভীন এ ও জানিয়েছেন যে, সরকারি অনুমোদন পেলে তারা দুই সপ্তাহের মধ্যে ক্লিনিকাল ট্রায়াল শেষ করে বাজারজাতকরণও করতে পারবেন এবং সাধারণ জনগণের হাতে পৌঁছে দিতে পারবেন তারা বিশ্বাস করছেন।

    এটি একটি করোনা প্রতিরোধমূলক ডিভাইস /মাস্ক যার মাধ্যমে করানো আক্রান্ত ব্যক্তির নিঃশ্বাসে নির্গত জীবাণু 99.995 % এর অধিক জীবাণুমুক্ত করে ফেলবে।যার মাধ্যমে অন্য একজন ব্যক্তি আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা একদমই ক্ষীণ হবে।অলরেডি এই ডিভাইস বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ সেন্টারে পাঠানো হয়েছে।

    এটি যদি বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ সেন্টারে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর পজেটিভ রেজাল্ট আসে, তাহলে এটি ডাক্তার, নার্স সহ বিভিন্ন মানুষের জন্য খুবই উপকারী এবং করোনার ব্যাপক বিস্তার রোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন