KiHobe Latest Articles

RJ Emon
  • 0

রাশিফলের প্রভাব – আজব গুজব

  • 0
রাশিফলের প্রভাব – আজব গুজব

Leave an answer

You must login to add an answer.

1 Answer

  1. রাশিফলের প্রভাব- গুজব নয় আজব তথ্য!

    আমরা অনেকেই রাশিফল জানতে আগ্রহী,
    কেউ সেই সব বিশ্বাস করেন, আবার কেউ তা অবিশ্বাস ও করেন । এক গবেষণায় দেখা গেছে বেশির ভাগই আগ্রহী তার নিজ ভাগ্য গণনা নিয়ে।
    তাই অল্প পরিসরে কিছু বিষয়
    তুলে ধরা হলো।

    #মেষরাশি :

    মেষরাশির জাতক হিসেবে আপনি হঠাৎ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। এছাড়া আপনার মতামত অন্যদের ওপর চাপিয়ে দেয়ার সবচেয়ে খারাপ অভ্যাস রয়েছে। আপনি যখন সঙ্গীকে ভালোবাসেন তখন তার বলা কথা খুব কমই শোনেন। আপনি এতবেশি ঘনিষ্ঠ হতে যান যে তা সম্পর্ক খারাপ করে তোলে। আপনার উল্লেখযোগ্য খারাপ বিষয় হলো- কোনো কিছু অন্যের সঙ্গে পরামর্শ না করেই সিদ্ধান্ত নেন। আপনি সম্পর্কের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দুটি বিষয় ভুলে গেছেন, তা হলো- ধৈর্য্য ও অধ্যবসায়।

    #বৃষরাশি :

    বৃষরাশির জাতক হিসেবে আপনি অত্যন্ত জেদি। আপনার জেদ আপনাকে কোথায় নিয়ে যাবে আপনিও জানেন না। একটি সম্পর্ক পারস্পারিক বোঝাপড়া ও সামঞ্জস্যের মাধ্যমে টিকে থাকে। নিজের স্বভাব বা কোনো বিষয় পরিবর্তন করার চেয়ে সঙ্গীর সঙ্গে সম্পর্কচ্ছেদ করতেও আপনি পিছপা হন না। আপনার পছন্দের জায়গা থেকে কিছুটা বের হয়ে এসে নতুন পরিবেশে ও সঙ্গীর সঙ্গে মানিয়ে নেয়া প্রয়োজন।

    #মিথুনরাশি :

    মিথুনরাশির জাতকরা একটু কৌতুহলপ্রবণ। সবসময় নতুন কিছু আবিষ্কারে আগ্রহী এবং সব সময় দুটি ভাবনার মধ্যে আটকে থাকেন। এমনকি আপনি যখন কাউকে ভালোবাসেন তখনও আপনি তা স্থির করে উঠতে পারেন না। এবং সর্বশেষ এমন সিদ্ধান্ত নেন যা ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।আপনার দ্বিধাবিভক্ত মন আপনাকে বর্তমান উপভোগ করতে দেয় তবে ভবিষ্যতে প্রত্যাশার জন্য কিছুই রাখে না।

    #কর্কটরাশি :

    কর্কটরাশির জাতকরা প্রেমময় ব্যক্তি। সম্পর্কের ক্ষেত্রে তারা অনেক ভালো মানের। তবে যখন বিষয়টি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায় তখন তারা বিরক্ত হতে পারেন। একটি সম্পর্কের ক্ষেত্রে, আপনি আপনার সঙ্গীকে তাদের স্বতন্ত্রতা বজায় রাখার জন্য কিছু পরিমাণ জায়গা দিতে এবং নিজের কাছে কিছুটা সময় দেওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

    #সিংহরাশি :

    সিংহরাশির জাতকরা প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বপূর্ণ হয়ে থাকেন। আপনার বিশ্বজুড়ে নেতৃত্ব দেয়ার ক্ষমতা রয়েছে। তবে যখন কোনো ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের বিষয় আসে তখন আপনার অহংকার বেশিরভাগ সময় বড় করে দেখেন। এতে করে সম্পর্কের অবনতি হয়। জীবন অবশ্যই প্রতিযোগীতামূলক এবং শক্তিশালী ব্যক্তিত্বের দরকার রয়েছে। তবে রোম্যান্সের ক্ষেত্রে আপনার সঙ্গীর পছন্দগুলোকে সম্মান করা ও তার মতামত বিবেচনা করার মধ্যে কোনো ক্ষতি নেই।

    #কন্যারাশি :

    কন্যারাশির জাতকদের সবকিছু যাচাই করার জন্য একটি নিখুঁত চোখ রয়েছে। আপনি যা করেন তা দুর্দান্ত হলেও অনেক সময় তা সঙ্গীকে বিরক্ত করতে পারে। ছোট ছোট ভুলের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা, কড়া নাড়ানো এবং ঝগড়া করা আপনার সঙ্গীর সাথে আপনার সুন্দর সম্পর্ককে নষ্ট করতে পারে।

    #তুলারাশি :

    আপনি প্রচণ্ড অন্তর্মুখী। যা সম্পর্ক ভাঙার ক্ষেত্রে যথেষ্ট ভূমিকা পালন করে। আপনার সঙ্গীর ক্রিয়াকলাপ আপনার অপছন্দ হলেও এবং গুরুতর আঘাত পেলেও তা লুকিয়ে রাখেন। এতে হতাশা বাড়ে। আপনার রোমান্টিক জীবনের প্রথম পর্যায়ে যে প্রীতি ও স্নেহ পুষিয়েছিল তা দূরে সরিয়ে দেয়।

    #বৃশ্চিকরাশি :

    আপনি সঙ্গীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হতে অনেক সময় নেন। দীর্ঘ সময় পর যখন তেমন একটি সম্পর্ক তৈরির দ্বারপ্রান্তে থাকেন তখন এতটাই ঝোঁক তৈরি হয় যে তা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। এতে করে আপনার ভালোবাসা সত্যি হলেও সঙ্গী তার প্রতি সন্দিহান হয়ে পড়েন।

    #ধনুরাশি :

    এই রাশির জাতকরা একাধিক বিশ্বাসঘাতকতার স্বীকার হন। এর অন্যতম কারণ হলো আপনি আপনার বিশ্বস্ত ভালোবাসা বারবারই অযোগ্য জায়গায় প্রদান করেছেন। এছাড়া আপনি যখন আবার সম্পর্কে জড়ান তখন তার থেকে আবার আঘাত পাওয়ার বিষয়ে ভীত থাকেন। এই কারণে আপনার অস্বাভাবিক আচরণ প্রকাশ পায়, যা সম্পর্ক ভাঙার অন্যতম কারণ হতে পারে। এই বিষয়গুলো পরিবর্তন করলেই একটি স্থায়ী সম্পর্কের দেখা পাবেন আপনি। নয়তো ফের আঘাত পাওয়ার জন্য তৈরি হতে হবে আপনাকে।

    #মকররাশি :

    যুক্তি দিয়ে চলতে পছন্দ আপনার। সবখানেই যুক্তির খোঁজ করেন। তেমনি সম্পর্কে ক্ষেত্রেও। আপনার সঙ্গীর সঙ্গে সম্পর্কের প্রতিটি ক্ষেত্রে যুক্তি খুঁজে বেড়ান। সম্পর্ক স্থায়ী ও সুন্দর করতে হলে প্রেম-রোম্যান্সের বেলায় যুক্তি বাদ দিতে হবে। এসব বিষয়ে আপনার আবেগকে প্রাধান্য দিতে হবে।

    #কুম্ভরাশি :

    কুম্ভরাশির জাতকরা নিজেকে সবার থেকে বিচ্ছিন্ন রাখতে পছন্দ করেন। এমনকি কোনো সম্পর্কে জড়ালেও নিজেকে স্বাধীন ও স্বতন্ত্র রাখতে সঙ্গীর থেকে দূরে থাকার উপায় খোঁজেন। সুযোগ পেলে থাকেনও। সম্পর্ক গড়ার ক্ষেত্রে এই বিষয়টি নিয়ে আপনাকে আরও ভাবতে হবে এবং স্বাধীনতাবোধ একটু কমাতে হবে।

    #মীনরাশি :

    আপনি খুব সৃজনশীল এবং সর্বদা একটি বিলাসবহুল বাড়ির স্বপ্ন দেখেন। প্রেম এবং সম্পর্ক সম্পর্কে আপনার চিন্তাভাবনাগুলি অনেক আদর্শবাদী, যা প্রায়শই আপনার সম্পর্ককে অনেক চাপে ফেলে। আপনার সঙ্গীর প্রতি ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি হওয়া ভাল, তবে অনেক সময় আপনার সঙ্গীকে এই বিষয়টি খুব চাপে ফেলে।

    বিদ্র: এই কথাগুলো একজন জ্যোতিষ শাস্ত্রের আমি সেটি আপনাদের কাছে উপস্থাপন করলাম মাত্র। তাছাড়া মানুষের কর্মফলের উপর তার ভবিষ্যৎ অনেকটা নির্ভর করে।
    তাই আপনি যদি কোনো ভালো কর্ম করে থাকেন তার ফল এই জীবনেই পেয়ে যাবেন।
    নিজের উপড় শুধু সেই বিশ্বাসটুকু রাখুন ।